লজিকাল ফ্যেলেসি বা গাঁজাখুরি যুক্তি (পর্ব ১) Straw Man Fallacy

রাজনৈতিক বক্তব্য, টিভি চ্যানেলের টক শো, বিতর্কে জবাব-পাল্টাজবাব, প্রেস কনফারেন্সে বিতর্কিত প্রসঙ্গে উত্তর দেয়া, নানা জনপ্রিয় পাবলিক স্পিকারদের বিষয়ভিক্তিক লেকচার এই সবগুলোতে যুক্তি অনিবার্য। বক্তাদের আত্মবিশ্বাস, রেফারেন্সনির্ভর লেকচার, কথার মাঝে শ্রোতা/দর্শকদের করতালি পাওয়ার জন্য হাস্যরসাত্মক কথা বলা, আর শ্রোতাদের ব্যক্তিগত আস্থা এইসবের উপর একটা বক্তার সফলতার অনেকাংশে নির্ভর করে। এজন্য ট্রাম্পের মত মানুষ পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষমতাশীল আসনে স্থান পায়। সাধারণ মানুষ পরখ করার সময় গভীরে চিন্তা করার চেষ্টা করে না বা পারে না, কারণ স্বাভাবিকভাবে কুযুক্তি আর সঠিক যুক্তির মধ্যকার পার্থক্য বোঝা অনেক কঠিন। ফলে প্রতিনিয়ত তারা মিথ্যার বুনিয়াদে গড়া ব্যবস্থার আরও গভীরেই যাচ্ছে আর বের হতে পারছে না।

প্রতারণামূলক যে প্রকার যুক্তি সত্য ও ন্যায্য উপসংহার থেকে আমাদের দুরে নিয়ে যাচ্ছে সেসব যুক্তিকে আমি এখানে গাঁজাখুরি যুক্তি বলছি। দর্শনের ভাষায় একে বলা হয় Logical Fallacy. আশা করি এই যুক্তিগুলো জানার পর ব্যাক্তিজীবনে ও নিজের আদর্শ-ধারনা-আস্থাগুলো বিচার করা, যথার্থতা খুঁজে বের করতে সাহায্য করবে।

যখন কেউ পাল্টা যুক্তি দেয়ার সময় আগেরজনের যুক্তিকে ভুলভাবে বুঝে, সেই ভুল জিনিসের প্রেক্ষিতে পাল্টা যুক্তি দেয় তখন সেটাকে Straw Man Fallacy বলে। এই গাঁজাখুরি যুক্তিতে Straw Man বা খড়মানব এজন্য বলা হয় কারণ এখানে যুক্তিকে সরাসরি আঘাত না করে, সেটাকে ভুল বুঝে একটা কাল্পনিক/ভুল/অনুমাননির্ভর যুক্তিকে আঘাত করা হয়;  ঠিক যেন আসল মানুষকে আঘাত না করে একটা কাল্পনিক খড় মানুষকে আঘাত করা।

একটা উদাহরণে যাই। নাটক-চলচ্চিত্র-বিজ্ঞাপনে প্রধান চরিত্রদের ধূমপান করা দেখে নতুন প্রজন্মের মধ্যেও ধূমপান করার ইচ্ছা দেখা দিচ্ছে। সেটা দেখে “ক” বললেন “আমার মতে, নাটক-চলচ্চিত্র-বিজ্ঞাপনে ধুমপান করা দেখানো উচিত না,  যাতে ধূমপান করা নতুন প্রজন্মের কেউ ট্রেন্ড বা স্টাইল হিসেবে না দেখতে পারে; ফলে ধূমপান করার প্রেষণা তারা পাবে না”। তখন “খ” বললেন, “এটা করলে মোটেও ধুমপান করা বন্ধ করা যাবে না”।

খেয়াল করুন, এখানে “ক” ধুমপানের প্রেষণা না পাওয়ার কথা বলেছে; বন্ধ করার কথা না। কিন্তু “খ” এর পাল্টাযুক্তি দিয়েছে “ধুমপান বন্ধ করা”র প্রসঙ্গে   এখানে “খ” যুক্তিকে ভুল বুঝেছে আর এমন কিছু বলেছে যা “ক” এর যুক্তির বিষয়বস্তু ছিলই না।

অনেকসময়  খড়মানব কুযুক্তি দিয়ে যুক্তিদাতাকে হেয় করার চেষ্টা করা হয়।  আমির খানের অভিনীত বিখ্যাত চলচ্চিত্র ” 3 Idiots” এ একটা জায়গায় র‍্যাঞ্চো (আমির খান)  নিজের ভাষায় মেশিনের সংজ্ঞা দিয়েছিল। শিক্ষক বইয়ের সংজ্ঞা না পাওয়ার কারণে অসন্তুষ্ট হওয়ায় র‍্যাঞ্চো বলে, “অর্থ বুঝাও তো প্রয়োজন, এভাবে কিতাব মুখস্ত করে কী লাভ ?” জবাবে শিক্ষক বলে, “আপনি কি কিতাব থেকে বেশি জানেন?” এটা একটা Strawman Fallacy ছিল, কারণ যুক্তি/প্রশ্নটা কিতাবের জ্ঞানকে চ্যালেঞ্জ করা না, অর্থ বুঝার প্রসঙ্গে করা হয়েছিল। এভাবে প্রতিনিয়ত অনেক প্রেস সচিব, জননেতা, সম্মানিত পাবলিক স্পিকাররা দর্শকদের করতালি পাওয়া ও চ্যালেঞ্জকারিকে অবজ্ঞা করার জন্য খড় মানব গাঁজাখুরি যুক্তি দিয়ে থাকে।

কিভাবে Strawman Fallacy থেকে বিরত থাকবেন?

  • ভাল করে বুঝার চেষ্টা করবেন অপর পক্ষ আসলে কি বুঝাতে চাচ্ছে
  • কেউ এই কুযুক্তি দিয়ে থাকলে প্রথমে সেটার সমাধান করতে হবে, নিজের যুক্তিকে আরও পরিষ্কার করে বলতে হবে।
  • নিজের অবস্থাকে পরিষ্কার করে না বুঝিয়ে ভুলেও কুযুক্তির পাল্টা যুক্তি দেয়া উচিত না, এতে করে অপরপক্ষের ভুল ধারনা প্রশ্রয় পেয়ে যাবে।

Comments

আপনার আরো পছন্দ হতে পারে...

মন্তব্য বা প্রতিক্রিয়া জানান

সবার আগে মন্তব্য করুন!

জানান আমাকে যখন আসবে -
avatar
wpDiscuz